সম্মানিত ভিজিটর! গাজওয়াতুল হিন্দ ওয়েবসাইটের আইপি এড্রেস- 82.221.136.58, ব্রাউজিং করতে সমস্যা হলে আইপি দিয়ে প্রবেশ করুন!
Home / মিডিয়া / আন-নাসর মিডিয়া / আমেরিকার নোংরা চেহারা -ফায়জান চৌধুরী || হিত্তিন ম্যাগাজিন, ইস্যু-২’ এর প্রবন্ধ অনুবাদ
আমেরিকার নোংরা চেহারা -ফায়জান চৌধুরী || হিত্তিন ম্যাগাজিন, ইস্যু-২’ এর প্রবন্ধ অনুবাদ

আমেরিকার নোংরা চেহারা -ফায়জান চৌধুরী || হিত্তিন ম্যাগাজিন, ইস্যু-২’ এর প্রবন্ধ অনুবাদ

اداره النصر
আন নাসর মিডিয়া
An Nasr Media

پیش کرتے ہیں
পরিবেশিত
Presents

بنگالی ترجمہ
বাংলা অনুবাদ
Bengali Translation

عنوان:
শিরোনাম:
Titled:

عالمی جہاد کا داعي مجلہ حطين، دوسرا شمارہ سے مقالہ کی ترجمۃ
بدمعاش امریکہ
খোরাসান থেকে প্রকাশিত বিশ্বব্যাপী জিহাদের প্রতি আহ্বানকারী ম্যাগাজিন ‘হিত্তিন, ইস্যু-২’ এর প্রবন্ধ অনুবাদ
আমেরিকার নোংরা চেহারা
Translation of an article from Hittin, Issue 2, a magazine calling for global jihad published from Khorasan
America’s dirty look

فیضان چودھری
ফায়জান চৌধুরী
Faizan Chowdhury



ڈون لوڈ كرين
সরাসরি পড়ুন ও ডাউনলোড করুন
For Direct Reading and Downloading

https://justpaste.it/Amerikar_Nongra_Chehara
https://archive.vn/ncwhN
https://mediagram.io/cb5f9899cbd75f90
https://archive.vn/a7M1s

پی ڈی ایف
PDF (720 KB)
পিডিএফ ডাউনলোড করুন [৭২০ কিলোবাইট]

https://archive.org/details/amerikar-nongra-chehara
https://ia601502.us.archive.org/5/it…graChehara.pdf
https://files.fm/f/6e4n9b5x
https://top4top.io/downloadf-1742zgm1t1-pdf.html
https://www.gulf-up.com/gkkf5ilat57v
https://mymegacloud.com/index.php?dl…0dead6d04557ce
https://anonfiles.com/dck313dbpf/Ame…graChehara_pdf
https://gofile.io/d/TDek2U
https://www.sendspace.com/file/hzsryn
https://www.up-4ever.org/h87fsendfc95

ورڈ
WORD (360 KB)
ওয়ার্ড ডাউনলোড করুন [৩৬০ কিলোবাইট]

https://archive.org/details/amerikar…chehara_202010
https://ia601407.us.archive.org/14/i…raChehara.docx
https://files.fm/f/hdazxq5p
https://top4top.io/downloadf-174293i9v1-docx.html
https://www.gulf-up.com/2s1bdgm92tts
https://www.up-4ever.org/3zb7gkbwe4nz
https://mymegacloud.com/index.php?dl…fe8589907e7716
https://anonfiles.com/X5j515d8p7/Ame…raChehara_docx
https://www.sendspace.com/file/gzt6ep
https://gofile.io/d/g2AIjn

غلاف
book cover [198 KB] বুক কভার [১৯৮ কিলোবাইট]

https://files.fm/f/ux9crvq5
https://mymegacloud.com/index.php?dl…63f35287a8efe3
https://i.ibb.co/B4cpmQV/US-face.jpg

بينر
banner [72 KB] ব্যানার [৭২ কিলোবাইট]

https://files.fm/f/wdetfhrv
https://mymegacloud.com/index.php?dl…30da05e84e6f71
https://i.ibb.co/NxRfBhp/US-face-Banner.jpg

সামাজিক প্লাটফর্মে আন নাসর মিডিয়া- আমাদের সাথেই থাকুন!

চারপওয়্যার অ্যাকাউন্ট- ফলো করুন- https://chirpwire.net/profile/nasrmedia
চারপওয়্যার গ্রুপ- জয়েন করুন- https://chirpwire.net/groups/profile/3296/an-nasr-media
টেলিগ্রাম চ্যানেল – https://t.me/anNasrMedia1
টেলিগ্রাম বট – https://t.me/annasrmedia_bot
রায়ট আইডি – https://riot.im/app/#/room/%23annasrmedia2:matrix.org
জিও নিউজ চ্যানেল- https://talk.gnews.bz/channel/an-nas…or-mussh-alnsr


اپنی دعاؤں میں ہمیں یاد رکھيں
اداره النصر براۓ نشر و اشاعت
القاعدہ برِّ صغیر(بنگلادیش)
আপনাদের দোয়ায়
আন নাসর মিডিয়ার ভাইদের স্মরণ রাখবেন!
আল কায়েদা উপমহাদেশ (বাংলাদেশ শাখা)
In your dua remember your brothers of
An Nasr Media
Al-Qaidah in the Subcontinent [Bangladesh]

===============

আমেরিকার নোংরা চেহারা

ফায়জান চৌধুরী

এই আলোচনাটি আমেরিকান লেখক, উইলিয়াম ব্ল্যাম (William Blum) এর বই Rogue State: A Guide to the World’s Only Superpower থেকে চয়ন করা হয়েছে। লেখক বইটি লিখেছেন ২০০০ ঈ. সনে। বইটির আলোচ্য বিষয় হলো, স্নায়ু যুদ্ধের সময় সোভিয়েত ইউনিয়নের মিত্র দেশগুলোর ব্যাপারে, আমেরিকার গৃহীত পররাষ্ট্রনীতির পর্যালোচনা। এই বইটি দ্বারা আমেরিকার মানসিকতার ছবিও ফুটে উঠে এবং এটাও স্পষ্ট হয়ে উঠে যে, আমেরিকার নীতিনির্ধারক, দেশ পরিচালনাকারী; পর্দার আড়ালের শাসক ও ব্যাংকাররা মানবতার কত বড় দুশমন এবং কী পরিমাণ নোংরা চরিত্রের অধিকারী তাদের জন্য মানবতার রক্ত প্রবাহিত করা খুবই স্বাভাবিক ও অত্যন্ত সহজ।
এজন্যই বৈশ্বিক জিহাদী আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা, শাইখ উসামা বিন লাদেন রহ. ১৯ জানুয়ারি ২০০৬ ঈ. –এ আমেরিকান জনগণের উদ্দেশ্যে তার এক ভাষণে এই বইয়ের রেফারেন্স দিয়েছেন এবং তখনকার প্রেসিডেন্ট জর্জ বুশকে লক্ষ্য করে বলেছেন, “যদি বুশ মিথ্যা কথা, জুলুম অত্যাচার ও কর্তৃত্ববাদী শাসনের উপর ভিত্তি করা তার পলিসি জারি রাখে, তাহলে তার জন্য জরুরী এই ‘Rouge State’ বইটি পড়ে নেয়া (যাতে করে সে তার সামনের সময়গুলোর কার্যক্রমকে অনুমান করতে পারে)”

শাইখ রহ. সারা বিশ্বে শান্তি ও নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠার পদ্ধতির ক্ষেত্রে প্রেসিডেন্ট বুশকে লক্ষ্য করে এও বলেছেন, “যদি আমি আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হতাম, তাহলে আমি আমেরিকা এবং আমেরিকার জনগণের বিরুদ্ধে চলা সন্ত্রাসী হামলাগুলোকে মাত্র কয়েক মুহূর্তের মধ্যে [চিরস্থায়ীভাবে] বন্ধ করে দিতাম। সবার আগে আমি খালেস নিয়তে, খোলা মনে জনগণের সামনে নিজের ভুলগুলো স্বীকার করতাম ও নিজের সীমালঙ্ঘনের জন্য ক্ষমা চাইতাম ঐ সকল বিধবা, এতিম, ক্ষতিগ্রস্ত ও লাখ লাখ ভুক্তভোগীদের কাছে আমি ক্ষমা চাইতাম, যারা আমেরিকান উপনিবেশের শিকার হয়েছে বা যাদের উপর নির্যাতন করা হয়েছে। অতঃপর আমি এই ঘোষণা করতাম যে, আজ থেকে আমেরিকার সামরিক দখলদারিত্বের অবসান করা হলো”

বইটির বেশিরভাগ ঘটনা, [যেগুলো সংক্ষেপে আমি এই আলোচনায় উল্লেখ করবো] স্নায়ু যুদ্ধের সময় আমেরিকান উপনিবেশের পক্ষ থেকে ঘটেছে। উচিৎ ছিল, আমেরিকা এসব থেকে শিক্ষা নিয়ে ভবিষ্যতের জন্য নিজের নীতিকে শুদ্ধ করে নিবে। অথচ আজও সে সমস্ত জুলুম, অত্যাচার ও সীমালঙ্ঘন, মুসলিম উম্মাহর বিরুদ্ধে সারা বিশ্বে জারি রেখেছে। ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, ফিলিপাইন থেকে শুরু করে তিউনিসিয়া, মিসর, লিবিয়া পর্যন্ত এবং সোমালিয়া, সুদান, নাইজেরিয়া, কেনিয়া থেকে শুরু করে উপমহাদেশ তথা পাকিস্তান, হিন্দুস্তান এবং আফগানিস্তান পর্যন্ত এই একই ঘটনা ঘটে চলছে।

এই সবগুলো দেশের উপর আমেরিকান উপনিবেশ পলিসি এজন্য কার্যকর হচ্ছে যে, প্রথমত: আমেরিকা বর্তমান রোমান গোষ্ঠীর প্রধান এবং কুফুরী বিশ্বের রাজা। আর তার আসল ও একমাত্র লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হলো, ইসলাম ও মুসলমানদেরকে খতম করা। দ্বিতীয়ত: এই দেশগুলোর সঙ্গে আমেরিকান বাণিজ্য ও রাষ্ট্রীয় সীমাতিরিক্ত কার্যক্রম পরিচালনা। তাদের মাঝে এই শক্তিশালী সম্পর্কের মূল উদ্দেশ্য হলো, কিছু অদেখা রাজনৈতিক বন্ধুর সহযোগীতায় বিশ্ব অস্ত্র শিল্পের উপর আমেরিকানদের পরিপূর্ণ একচেটিয়া আধিপত্য কায়েম করা এছাড়া স্থানীয় কারবারি ও শাসকদের সহযোগীতায়, মুসলিম দেশগুলোসহ পুরা বিশ্বের কুদরতি সম্পদগুলোর উপর মহা অপরাধমূলক লুটপাট চালানো। সুতরাং এটা এখন স্পষ্ট বাস্তবতা যে, আজ আমেরিকা বিশ্ব মানবতার এক বিরাট প্রতিবন্ধক। তার অনিষ্ঠতা বুঝা, তার বিরুদ্ধে অন্তরে ঘৃণা পোষণ করা এবং তার বিরুদ্ধে দাঁড়ানো প্রত্যেক বুঝমান, আত্মমর্যাদাবোধ ও লজ্জাবোধ সম্পন্ন ব্যক্তির উপর প্রথম গুরু দায়িত্ব।
আমাদের দেশ পাকিস্তানে এমন অনেক নেতা আছেন, যারা খাঁটি মনে আমেরিকার বিরোধিতা করেনকিন্তু তাদের কাজকর্ম ও চালচলন, তাদের অবস্থান বিরোধী। তারা অন্তরে অন্তরে আমেরিকার প্রতি ঘৃণা পোষণ করেন, কিন্তু এর বাস্তব চাহিদা মোতাবেক চলতে ত্রুটি করেনএজন্যই আমাদের দেশের ধর্ম বিরোধী অনেক বুদ্ধিজীবী চিৎকার করে বলে বেড়ান, “ধর্মীয় গোষ্ঠীর দালালেরা গো(Go) আমেরিকা গো(Go) (আমেরিকা চলে যাও)”অথবা “আমেরিকার বন্ধুরা সব গাদ্দার গাদ্দার”

এই শ্লোগান তারা দেয় ঠিক, কিন্তু এরপর আবার এরাই সবাই মিলে আমেরিকান দূতাবাসের বাইরে আমেরিকার ভিসা পাওয়ার জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে ধাক্কাধাক্কি করে। আমরা এটা জানি যে, ধর্মীয় গ্রুপগুলোর ব্যাপারে এই বিশেষ কথাটি ব্যাপকভাবে সঠিক নয়। কারো কারো ক্ষেত্রে সঠিক হতে পারে। আবার ব্যাপক অবস্থাটা যে অনেক ধরনের তাও নয়। কারণ, আমাদের সাধারণ জনগণ আমেরিকা ও আমেরিকান মদদপুষ্ট শাসক গোষ্ঠী এবং গাদ্দার আর্মি জেনারেলদের প্রতি এই পরিমাণ অসন্তুষ্ট যে, সেদিন বেশি দূরে নয় যেদিন এই জনগণ আমেরিকার প্রাণপ্রিয় হোসনি মোবারক, যাইনুল আবেদীন বিন আলি, আলি আব্দুল্লাহ সালেহদের মত দালালদের বিরুদ্ধে যেমন আন্দোলন হয়েছিল, তেমনিভাবে খোদা প্রদত্ত এই পাকিস্তানেও একটি ইসলামী বসন্ত কায়েম করবে।

সুতরাং আমাদের দেশের সকল একনিষ্ঠ ব্যক্তিকে এটা পরিষ্কারভাবে বুঝতে হবে যে, আজ আমেরিকাই হলো সারা বিশ্বে ফেতনা ফাসাদের ‘মৌলিক’ উৎস এবং কুফুর ও নাস্তিকতার মূলকেন্দ্রতার প্রতি ঘৃণা পোষণ প্রত্যেক আত্মমর্যাদাবান মুসলমানের ঈমানের অংশ হওয়া উচিৎ। তার বিরুদ্ধে “কিতাল ফী সাবিলিল্লাহ” ফরযে আইন। তাকে প্রত্যেকটা জায়গায় টার্গেট করা; সাপের মাথায় আঘাত করার সমতুল্য। অনুরূপভাবে ইসলামী দেশগুলোর উপর চেপে বসা তার চামচা জেনারেল ও রাজনীতিবিদদের বিরুদ্ধে কিতাল ফী সাবিলিল্লাহ অত্যাবশ্যক।

এখানে আমরা জরুরীভাবে এটা স্পষ্ট করে দিচ্ছি যে, অন্যান্য বিশ্বশক্তির বিরুদ্ধে আমেরিকান হামলা ও জুলুম নির্যাতনের যেই ঘটনাগুলো বইটিতে উল্লেখ করা হয়েছে, আমরা এই আলোচনায় সেগুলো বর্ণনা করার দ্বারা, আমেরিকার মোকাবেলায় অন্য কোন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি সমবেদনা প্রকাশ উদ্দেশ্য নয়। চাই সোভিয়েত ইউনিয়ন হোক, চীন হোক, অথবা ইউরোপের ঠিকাদার হোক দুনিয়াতে নিরাপত্তাহীনতা সৃষ্টি এবং জুলুম অত্যাচার ছড়ানোর ক্ষেত্রে সবাই অংশীদার তবে হ্যাঁ, আমেরিকা তাদের সূচীর ‘এক’ নাম্বারে আছে। বিশ্ব রাজনীতিতে নিজের আধিপত্য প্রতিষ্ঠা করার জন্য প্রত্যেকেই নিজের সবটুকু ক্ষমতাকে কাজে লাগিয়ে, সামর্থ্য অনুযায়ী অংশ নেওয়ার চেষ্টা করছে। কেউতো মাথা পর্যন্ত জুলুম আর অন্যায়অত্যাচারে ডুবে আছে, আর কেউ গর্দান পর্যন্ত। তাদের সবার জুলুমের শিকার হলো, বিশ্ব মানবতা। চাই মুসলমান হোক চাই কাফের, সে অবশ্যই সমবেদনা পাওয়ার যোগ্য। তাদের উপর থেকে জুলম প্রতিরোধ করা প্রত্যেক মানুষের জিম্মাদারি অবশ্যই সারা বিশ্বে বাস্তব ‘নিরাপত্তার’ নিশ্চয়তা আছে, শুধুমাত্র ইসলামী নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠার মধ্যে। যা প্রতিষ্ঠালাভ করতে পারে একমাত্র আল্লাহভীরু এবং ইসলামের উপর পরিপূর্ণভাবে চলা মুসলিম নেতৃবৃন্দের হাতে।

এ পর্যায়ে আমরা পাঠকদেরকে বইটির কিছু আলোচনার প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করব।

একঃ আমেরিকার বিদেশনীতি – মানবতার ধ্বংসলীলা

১৯৯৪ ঈ. সনের কংগ্রেস রিপোর্ট অনুযায়ী আমেরিকা দুটি রাসায়নিক গ্যাস; মাস্টার্ড (mustard) গ্যাস ও ব্লিস্টার (blister) গ্যাস পরীক্ষার জন্য ৬০ হাজার সৈন্যকে পশুর পরিবর্তে ব্যবহার করেছে। পরীক্ষা শেষে এই সকল ব্যক্তিকে কোন ধরণের ডাক্তারি সহায়তা দেয়া হয়নি। উল্টো তাদেরকে হুমকি ধমকির সাথে বলে দেওয়া হয়েছে, এই বিষয়টি নিজের মা, বাবা, স্ত্রী এমনকি পারিবারিক ডাক্তারকেও বলতে পারবে না। অন্যথায় তাদেরকে লেভেনওয়ার্থ (Fort Leavenworth) জেলে বন্দি করে রাখা হবে। এই পরীক্ষার ফলে এর সদস্যরা বিভিন্ন রকম বিকলাঙ্গতা ও মানসিক সমস্যায় আক্রান্ত হন

১৯৯০ ঈ. সনে ‘উপসাগরীয় যু্দ্ধ’ ফেরত অধিকাংশ সেনা সদস্য ক্ষতিকারক রাসায়নিক ও মরণঘাতী বিভিন্ন পদার্থের প্রভাবে স্নায়বিক সমস্যা, স্মরণশক্তি কমে যাওয়া, মারাত্মক খুজলি পাঁচড়া, ফুসফুস জনিত রোগ, পেশী ও গিরায় প্রচণ্ড ব্যথা হওয়া ইত্যাদি রোগে আক্রান্ত হয়। যখন আমেরিকান জনগণ সবাই এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ শুরু করল, তখন পেন্টাগন (Pentagon) এটা জানালো যে, ‘এই যুদ্ধে আমাদের রাসায়নিক অস্ত্রের গুদামে আক্রমণ করা হয়েছিল, যার কারণে বিষক্রিয়া আবহাওয়ার সাথে মিশে গিয়েছিল। আর আমাদের আমেরিকান সৈন্যদেরকেও এমন জায়গাগুলোতে মোতায়েন করা হয়েছিল যেখানে এই বিষক্রিয়া ছড়িয়েছিল’এই সৈন্যদের সংখ্যা প্রথমে গোপন করা হয়েছিল, কিন্তু পরে জানা যায়, কমপক্ষে ২০ হাজার ৮ শত ৬৭ জন বিভিন্ন সমস্যায় আক্রান্ত হয়েছিলবিষয়টি ধীরে ধীরে আরো স্পষ্ট হওয়ার পর জানা যায়, উপসাগরীয় যুদ্ধের কারণে কমপক্ষে ১ লক্ষ আমেরিকান সৈন্য এবং কর্মচারীর মধ্যে সারিন (sarin) গ্যাস [রাসায়নিক হামলায় ব্যবহৃত এক প্রকার মরণঘাতী গ্যাস] এর তেজস্ক্রিয়তা পাওয়া গেছে।

এছাড়াও এন্ত্রাক্স (anthrax) এবং স্নায়ু আক্রান্তকারী গ্যাসের চিকিৎসায়, সৈনিকদেরকে এমন ভ্যাকসিন গ্রহণে বাধ্য করা হয়েছে যা আমেরিকার খাদ্য ও ঔষধ প্রশাসন এফ.ডি.(Food and Drug Administration) থেকে অনুমোদিত ছিল না। এই ভ্যাকসিন গ্রহণে অস্বীকারকারী অনেক ব্যক্তিকে শাস্তি দেওয়া হয়েছে। কেমন যেন তারা রোগ এবং শাস্তি; একসাথে দুই সমস্যায় পড়েছে। শাস্তি তাদেরকেই ভোগ করতে হয়েছে, আর অপরাধীরা সম্পূর্ণ ধরাছোঁয়ার বাইরেই রয়ে গেছে। শেষে ১৯৯৯ ঈ. সনে আমেরিকান নিরাপত্তা বিভাগ এটা স্বীকার করেছিল যে, সৈনিকদের নানান রোগে আক্রান্ত হবার ক্ষেত্রে [তাদের উপর প্রয়োগ করা] ভ্যাকসিনের কিছু না কিছু সম্পর্ক ছিল

তার পূর্বে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে আমেরিকান সৈন্যদেরকে বাধ্য করা হয়েছে, তারা যেন প্রথমে জ্বরের (yello fever) ভ্যাকসিন গ্রহণ করে নেয়। যার ফলশ্রুতিতে ১৩ লক্ষ ৩০ হাজার সৈনিক হেপাটাইটিস (বি) ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে।

অর্থাৎ, ১৯৪০ ঈ. থেকে ১৯৯১ ঈ. পর্যন্ত আমেরিকা সরকার নিজের নাগরিকদের সাথে অত্যন্ত পাশবিক আচরণ করেছে। সৈনিকদেরকে পশুর স্থলাভিষিক্ত করে পরীক্ষায় ব্যবহার করা হয়েছে। তাদেরকে যুদ্ধে এমন জায়গায় রাখা হয়েছে, যেখানে পারমানবিক তেজস্ক্রিয়তা ছড়িয়েছিল। পাইলটদেরকে রাসায়নিক মেঘের মাঝে উড়তে বাধ্য করা হয়েছে। নিজের জনগণের উপর মরণাস্ত্র পরীক্ষা করা হয়েছে। মানুষকে বিকলাঙ্গকারী ঔষধ নিজের নাগরিকদের উপর পরীক্ষা করা হয়েছে; যার কারণে বহু মানুষের ব্রেন নষ্ট হয়ে গেছে। এসব পরীক্ষার ব্যাপারে আমেরিকান জনগণকে কিছুই অবগত করা হয়নি এবং পরবর্তীতে তাদের কোন চিকিৎসারও ব্যবস্থা করা হয়নি।

এই সামান্য কিছু ইতিহাস বর্ণনার উদ্দেশ্য হলো, যেই আমেরিকা নিজের জনগণ ও সৈনিকদের প্রতি খেয়াল রাখে না সে অন্য দেশের লোকদের প্রতি আর কী খেয়াল রাখবে?

তিব্বতের বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা ও আধ্যাত্মিক নেতা; দালাইলামা (Dalai Lama) –কে সিআইএ এর এক কর্মকর্তা জিজ্ঞাসা করেছেন যে, ‘তিব্বতীদেরকে সাহায্য করে আমরা ভালো করেছি না খারাপ করেছি’?

তার জবাব ছিল, “সেই সাহায্যতো চীন বিরোধীদের জন্য উপকারী ছিল; কিন্তু বাস্তবে আমেরিকান সাহায্য মূলত তিব্বতীদের জন্য ছিল না। বরং সেটা ছিল স্নায়ু যুদ্ধের প্রচলিত নিয়ম অনুযায়ী চীনকে ধমকের উপর রাখার উদ্দেশ্যে। যাইহোক এই পুরো খেলায় হাজার হাজার প্রাণ বিনাশ হয়েছে। (তাহলে এই সবের জিম্মাদারি কার উপর চাপানো হবে?”

জাতিসংঘে নিযুক্ত আমেরিকান দূত ‘মেডিলিন এলব্রাইট’ (Madeleine Albright) এর সেই ইন্টারভিউ কার স্মৃতি থেকে মুছে যাবে? যখন রিপোর্টার লেসলি (Lesley Stahl) তাকে প্রশ্ন করেছিলেন যে, ‘এক রিপোর্ট অনুযায়ী উপসাগরীয় যুদ্ধে এখন পর্যন্ত অর্ধ মিলিয়ন শিশু মারা গেছে আর এই সংখ্যা হিরোশিমার মৃত শিশুদের চেয়ে বেশি! এ ক্ষেত্রে আপনার খেয়াল কী? এমন হওয়া কি উচিৎ ছিল’? তখন সে বিশেষ ভঙ্গিতে ভ্রু কুঞ্চিত করে জবাব দিল, “আমার মতে যদিও এটা এক মারাত্মক কাজ; কিন্তু এমন হওয়ারই দরকার ছিল”

এই এলব্রাইটকে ১৯৯৮ ঈ. এর ফেব্রুয়ারীতে কলম্বাসের এক সাধারণ সভায় যখন তিরস্কার করা হয়, তখন সেখানে সে ইরাকে আমেরিকার গণহত্যার পক্ষ নিয়ে বলে, “আমরা বিশ্বের মধ্যে বিরাট বড় মর্যাদার অধিকারী জাতি (অর্থাৎ, আমাদের যে কোন পদক্ষেপকেই ন্যায় ও ইনসাফ ভাবতে হবে)”

ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের চীফ ইকোনোমিস্ট লরেন্স সামার্য (Lawrence Summers) একটি প্রস্তাবনা পেশ করেছেন যে, দূষিত পদার্থ উৎপাদনকারী শিল্পগুলোকে অনুন্নত বা উন্নয়নশীল দেশগুলোতে স্থানান্তর করার প্রতি উৎসাহ দেওয়া উচিৎ। কেননা এতে দূষিত পদার্থের কারণে ঘটা মৃত্যু এবং সুস্থতার সমাধানে, আমাদের দেশের খরচ কমে যাবে। এরই সাথে ঐ সকল দেশের ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমিকদেরকে প্রদান করা অর্থও কমে আসবে। কেননা সেসব দেশে শ্রমিকদের পারিশ্রমিক এমনিতেই কম। এই সবদিক বিবেচনায় আমার মনে হচ্ছে, এই প্রস্তাবনা আমাদের জন্য অনেক ভালো হবে।

লরেন্সের এই প্রস্তাবনার উপর আমেরিকায় অনেক সমালোচনা হয়েছে, কিন্তু তাসত্ত্বেও ১৯৯৯ ঈ. সনে প্রেসিডেন্ট ক্লিন্টন (Clinton) লরেন্স সামার্যকে সাদরে গ্রহণ করে তাকে আন্তর্জাতিক বিষয়ক ‘আন্ডার সেক্রেটারি’ থেকে প্রমোশন দিয়ে ‘অর্থ সেক্রেটারী’ বানিয়ে দেন।

ক্লিন্টন শাসনামলের ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং ২০০০ ঈ. এর নির্বাচনে বুশের প্রতিদ্বন্দ্বী; ‘আলবার্ট গোর’ (Albert Gore) এর অবস্থাটা দেখুন ১৯৯৮ ঈ. সনে যখন দক্ষিণ আফ্রিকা তাদের অধিবাসীদের জন্য এইডস সুরক্ষা সরঞ্জাম সস্তা মূল্যে বিতরণ করার সিদ্ধান্ত নিলো, তখন এই ব্যক্তি দক্ষিণ আফ্রিকার উপর বাণিজ্যিক নিষেধাজ্ঞা আরোপের হুমকি দিয়ে তাদেরকে বিরত রাখার চেষ্টা করল। কেননা দক্ষিণ আফ্রিকার এই পদক্ষেপ আমেরিকান ঔষধ কোম্পানিগুলোর লোকসানের কারণ ছিলপরে এক সাধারণ সমাবেশে যখন তার কাছে এই আচরণের জবাব চাওয়া হয়, তখন সে বললো, ‘আমি নিজের দেশকে ভালোবাসি (তাই দেশের উপকারে সবই করতে পারি)’

১৯৯১ ঈ. সনে ইরাকের উপর আমেরিকার বোমা বর্ষণের সময় সাধারণ নাগরিকদের এমন এক আশ্রয়কেন্দ্রকে জালিয়ে ছাই করে দেওয়া হয়, যেখানে শুধু মহিলা ও শিশুরা আশ্রয় নিয়েছিল। এই ঘটনার ব্যাপারে হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র মার্লিন ফিটজওয়াটার (Marlin Fitzwater) একদম নিষ্পাপ চেহারায় বলে দিলেন, “আমাদের জানা ছিল না সেখানে নাগরিকরা কেন থাকবে? আর মানব জীবনের মূল্য মর্যাদা সাদ্দাম হোসাইনের চাইতে আমাদের মধ্যে বেশি”

ভিয়েতনাম যুদ্ধের সময় আমেরিকার খুনহত্যা খুব চলছিল তখনকার আমেরিকান প্রেসিডেন্ট জনসন (Johnson) সবাইকে এটা আশ্বস্ত করতে ব্যস্ত ছিলেন যে, “মানবিক জীবনের প্রতি সম্মান আমাদের চেয়ে বেশি এশীয়দের মধ্যে নেই”এই কথাটা তখনই বলা হচ্ছিল যখন আমেরিকার বোমা, জঙ্গি বিমান ও হেলিকপ্টারগুলো ভিয়েতনামীদের জীবন উজাড় করে চলছিলএই সময়ই আমেরিকান সাংবাদিক ডেভিড লরেন্স (David Lawrence) তার একটি রিপোর্টে লিখেছেন যে, ‘আমেরিকানরা ভিয়েতনামে যা কিছু করে চলছে, তা মানবিক সমবেদনার এমন এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত যা প্রথম দৃষ্টিতে বুঝা যাবে না’এর ভিত্তিতে আমি তার কাছে ভিয়েতনামে আমেরিকার কৃতকর্মের উপর লিখিত একটি পত্রিকা পাঠিয়ে দিলাম এবং পত্রিকাটির নীচে লিখে দিলাম যে, আমাদের দুজনের মধ্যে কোন একজন পাগল। আর এটাও বলে দিলাম যে, নিজের বক্তব্য লিখার আগে আমেরিকার এই অপরাধগুলো গভীরভাবে পড়ে নিও। তো বিকৃত মস্তিষ্কের এই সাংবাদিকের জবাব ছিল, ‘আমার মতে এই পত্রিকাটি আমার বিষয়টিকে আরো স্পষ্ট করছে যে, উশৃঙ্খল ও রক্তপিপাসু লোকদেরকে সভ্য জীবনের সঠিক বুনিয়াদগুলো শিখানো দরকার’

আমেরিকার মন মানসিকতা হলো, যে কোন অমানবিক কাজ যদি আমেরিকার নিরাপত্তার জন্য করা হয়, তাহলে সেটা বিরাট পূণ্যের কাজ হয়ে যায়। এর মধ্যে পুরা দুনিয়ার বিভিন্ন বিষয়ে নাকগলানো, বোমা বর্ষণ, নিষ্পাপ লোকদের রক্তে হোলি খেলাসহ সবই অন্তর্ভুক্ত

জাপানের ‘হিরোশিমা’ ও ‘নাগাশাকি’ শহরের উপর পারমানবিক বোমা ফেলার ব্যাপারে দুনিয়াবাসীকে এই বৈধতা দেখানো হয়েছে যে, জাপানকে স্থল হামলা থেকে বিরত রাখতে এবং হাজারো আমেরিকানের জান বাঁচানোর জন্য অত্যন্ত অপারগ হয়ে এই কাজটি করা হয়েছে। পরবর্তীতে প্রকাশ পাওয়া তথ্য থেকে জানা যায় যে, জাপান কয়েক মাস যাবত হাতিয়ার ছেড়ে দেওয়ার চেষ্টায় ছিল, কিন্তু আমেরিকা শুধু এজন্যই তা এড়িয়ে যাচ্ছিল যে, তার পারমানবিক বিস্ফোরণের একটি বৈধতার প্রয়োজন ছিল বাস্তবে পারমানবিক বিস্ফোরণ জাপানিদেরকে অপদস্ত করার জন্য ছিল না; বরং রাশিয়াকে ভীত করার জন্য করা হয়েছে। আর এজন্যই তখন এই কথাটি বলা হয়েছিল যে, ‘এটা বিশ্বযুদ্ধের শেষ হামলা নয়; বরং স্নায়ু যুদ্ধের প্রথম হামলা’

দুই: আমেরিকার পররাষ্ট্রনীতির মূলভিত্তি

আমেরিকার সর্বদা অন্যকে নিজের চাহিদার অনুসারী বানানোর ভিত্তি করে পররাষ্ট্রনীতি বানিয়েছে এবং সে অনুযায়ীই কাজ করেছে। কিন্তু সবসময় সারা বিশ্বকে এবং নিজ জনগণকে ধোঁকাবাজির সাথে এটাই বিশ্বাস করিয়েছে যে, তাদের উদ্দেশ্য হলো বিশ্বকে এবং বিশ্বের সব জাতি ও তাদের সভ্যতাকে রক্ষা করা, আর সে নিঃস্বার্থভাবে এই উদ্দেশ্যকে নিজের স্বার্থের উপর প্রাধান্য দেয়।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর নবজন্মা সোভিয়েত ইউনিয়ন যখন দুনিয়ার কিছু এলাকাকে পুঁজিবাদীয় আধিপত্য থেকে বের করল, তখন তার উপর আক্রমণকারীদের তালিকার শীর্ষে ছিল আমেরিকা। আমেরিকা নিজের পুঁজিবাদীয় স্বার্থ রক্ষার জন্য সোভিয়েত ইউনিয়নের মোকাবেলায় বিভিন্ন গ্রুপকে সাহায্য সহায়তা দিয়েছে। কিন্তু, যখন বিষয়টি পরিষ্কার হয়ে গেলো তখন আমেরিকান সেনাবাহিনীর প্রধান ঘোষণা করে বললেন, ‘আমাদের এই প্রচারণা ইজ্জতসম্মান, নিঃস্বার্থ ও নির্লোভ কার্যক্রমের ক্ষেত্রে মানব ইতিহাসের সবচেয়েয়ে স্বচ্ছ দৃষ্টান্ত যে, আমরা নিজেদের লোকদের বাইরে এমন লোকদেরকে সাহায্য করছি যারা নিজেদের স্বাধীনতার জন্য চেষ্টা প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে’

এর ঠিক ৭০ বছর পর সে সময়ের আমেরিকান সেনাবাহিনীর চেয়ারম্যান জয়েন্ট চীফ ‘জেনারেল কলিন পাওয়েল’ (Colin Powell) পানামার (Panama) জনগণকে গণহত্যার কিছু দিন পর ক্যালিফোর্নিয়ার এক অনুষ্ঠানে বলেন, আমাদের নির্লোভ, নিঃস্বার্থতা ও সম্মান মর্যাদার কারণে প্রশান্ত মহাসাগরে আমাদের অনেক বন্ধু রাষ্ট্র আছে’

আমেরিকার এই চেহারাকে বিশ্লেষণ করে আমেরিকান সাংবাদিক গেরি ওয়িল্জ (Garry Wills) লিখেছেন, ‘আমরা মনে করি, অন্যের ব্যাপারে দরদী হয়ে তাদেরকে বাস্তবে হত্যাও করা যায় বা কাউকে প্রচণ্ড ভালবাসলে তাদের উপর নিজের বন্দুকও উঠানো যায়। অতএব, আমেরিকা যখন নিজের নিঃস্বার্থ মুডে থাকে তখন অন্যান্য জাতিদের জন্য এটাই উত্তম ও নিরাপদ যে, তারা যেন দুর্গ বন্দি হয়ে থাকে’

এতে বুঝা যায়, আমেরিকার বিদেশনীতির মূলে মানবতার প্রতি কোন ধরণের দরদ বা শিষ্ঠাচার নেই। বরং তাদের ইতিহাস পর্যালোচনায় জানা যায়, আমেরিকার বিদেশনীতির ভিত্তি নীচের চার স্তম্ভের উপর প্রতিষ্ঠিত:

. গ্লোবালাইজেশন: অর্থাৎ সারা বিশ্বে আমেরিকান মাল্টি ন্যাশনাল কোম্পানিগুলোর অবস্থান বাড়ানো ও মজবুত করা।

. দেশের অভ্যন্তরীণ প্রতিরক্ষা ঠিকাদারদের সম্পদ ক্ষমতা বাড়ানো, যারা কংগ্রেস সদস্যদেরকে এবং হোয়াইট হাউসে ক্ষমতাসীনদেরকে মোটা অংকে অনুদানের ক্ষেত্রে বিরাট ভূমিকা পালন করে।

. এমন সকল দেশের উন্নতিকে থামানো যার ব্যাপারে অনুমান হবে যে, সে পুঁজিবাদীয় ব্যবস্থার মোকাবেলায় সফল হতে পারে।

. সারা বিশ্বে রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক এবং সামরিক আধিপত্যকে এই পরিমাণ বাড়াতে হবে, যেন কোন আঞ্চলিক শক্তি আমেরিকার বড়ত্বের জন্য হুমকি হতে না পারে এবং এমন বিশ্বনীতি বানাতে হবে, যেটা বিশ্বের তথাকথিত একক সুপার পাওয়ারের সন্তুষ্টি ও স্বার্থ মোতাবেক হবে।

কংগ্রেসের সামনে আমেরিকান সেন্টকমের (CENTCOM) অফিসার ‘নরম্যান সাওয়ারজকোফ’ (Norman Schwarzkopf) এর দেওয়া একটি ভাষণ, আমেরিকান সেনাবাহিনীর মনমস্তিষ্ককে স্পষ্ট করে দেয়। তিনি বলেন, “আমরা বিভিন্ন দেশের নিরাপত্তার অজুহাতে যে সাহায্যের আঞ্জাম দেই, এটা আমাদের জন্য ঐ সকল দেশে পৌছার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম। যদি আমাদের কোন বন্ধু সেই সাহায্যের অনুমতি না দেয়, তাহলে আমাদের জন্য আমেরিকান সেনাবাহিনীকে কাঙ্ক্ষিত সেই এলাকায় পৌঁছানো অসম্ভব হয়ে যায় এবং তখন আমরা এক বিশেষ সময় পর্যন্ত নিজেদের সেনাবাহিনীকে সেখানে আর রাখতে পারি না। এটা বাস্তব যে, আমাদের সামরিক সাহায্যের প্রোগ্রাম যদি বন্ধ করে দেওয়া হয়, তাহলে বিশ্বের উপর আমাদের প্রভাবপ্রতিপত্তি শেষ হয়ে যাবে এবং আমরা ঐ জায়গায় ফিরে যাবো, যেখানে আমাদের কাছে অস্ত্রগুলোর ব্যবহার এবং শত্রুকে কাবু করার সুযোগগুলো খুব কমই থাকবে। আমাদের কার্যক্রমের দ্বিতীয় পদ্ধতি হলো, ‘উপস্থিতি’এটা কোন এলাকাকে শক্তিশালী করার অজুহাতে সেখানে আমেরিকার স্বার্থ ও কার্যক্রমকে বাস্তবায়িত করে। সেন্টকমের (CENTCOM) কার্যক্রমের তৃতীয় পদ্ধতি হলো, ‘সম্মিলিত সামরিক মহড়া’এটাও বিভিন্ন এলাকায় আমাদের দায়িত্ব ও সিদ্ধান্তগুলোকে বাস্তবায়িত করে এবং পরস্পরের সহযোগীতাকে বাড়ায় এবং আমাদের বন্ধুদের সাথে ঐক্য ও নৈকট্যের পরিবেশে কাজ করার কারণে আমাদের যোগ্যতাকে অনেক বাড়িয়ে দেয়”

তিন: আমেরিকার মানবতা বিরোধী যুদ্ধাপরাধ

এখানে আমরা সারা বিশ্বে আমেরিকার পক্ষ থেকে ঘটা যুদ্ধাপরাধের সামান্য কিছু উল্লেখ করবো।

. আমেরিকার বোমা বর্ষণের কিছু ঘটনা

যুগোশ্লোভিয়ার (Yugoslavia) উপর বোমা হামলা:

আমেরিকার প্রতিরক্ষা বিভাগের রিপোর্ট অনুযায়ী ১৯৯৯ ঈ. সনে যুগোশ্লোভিয়ায় হামলার সময় আমেরিকার জঙ্গি বিমানগুলো সেখানে ১১০০টি ক্লাস্টার বোমা ফেলেছে, যার প্রতিটা বোমা ছিল ২০২টি বোমার সমষ্টি। তাহলে মোট (,২২,২০০) দুই লক্ষ বাইশ হাজার দুই শত বোমা ফেলা হয়েছে। তাদের রিপোর্ট মোতাবেক এই বোমাগুলোর মধ্যে অকেজো ছিল ৫%, অর্থাৎ অন্তত এগার হাজার একশত (১১,১০০) বোমা ফাটেনি; যেগুলো পরবর্তীতে ল্যান্ড মাইনের কাজ দিয়েছে এবং এর কারণে বহু লোক নিহত হয়েছে। ক্লাস্টার বোমা প্রজ্বলিত লোহার খণ্ডের মত হয় যেগুলো অন্ধকারের মত দ্রুত ছড়িয়ে সব দিয়ে আগুন লাগিয়ে দেয়। লৌহ ধাতবকে গলিয়ে দেওয়ার ক্ষমতাবান এই বোমাগুলো, ট্যাংক ও সাঁজোয়া জানগুলোকে ছিদ্র করে ফেলে এবং এতোটা তীক্ষ্ণ ধারালো ও তীব্র হয় যে, একচতুর্থাংশের লোহার প্লেট বা মানবদেহের গোশত ও হাড্ডিকে টুকরা টুকরা করে ফেলে।

যুগোশ্লোভিয়ার একজন অর্থোপেডিক বিশেষজ্ঞ ডাক্তার বলেছেন, ‘আমি এবং আমার ডাক্তার সঙ্গীরা আজ পর্যন্ত এমন ভয়ানক জখম দেখিনি যা ক্লাস্টার বোমায় আহত লোকদের হয়েছে। এতো মারাত্মক জখম হয়, যা বিরাট ধরনের প্রতিবন্ধী হওয়ার কারণ হয়ে যায়। হাড্ডি এমনভাবে চূর্ণ হয় যে, সংশ্লিষ্ট অঙ্গকে শরীর থেকে আলাদা করা ছাড়া আর কোন উপায় থাকে না’

লাওসের (Laos) উপর বোমা হামলা:

লাওসে ১৯৬৫ ঈ. থেকে ১৯৭৩ পর্যন্ত চলমান আমেরিকার বোমা হামলায় কমবেশি ২ মিলিয়ন টন বারুদের বোমা, কার্পেট বোমা হামলার মত বর্ষণ করা হয়েছে। এর মধ্যে ৩০% বোমা ফাটেনি এবং এগুলোর কারণেই এখন পর্যন্ত ১১ হাজার দুর্ঘটনা ঘটেছে।

উপসাগরীয় যুদ্ধে (Gulf War) ইরাকের উপর বোমা হামলা:

উপসাগরীয় প্রথম যুদ্ধে, এক রিপোর্ট অনুযায়ী ২৪ থেকে ৩০ মিলিয়ন ক্লাস্টার বোমা বর্ষণ করা হয়েছে। যার মধ্যে ১.২ থেকে ১.৫ মিলিয়ন বোমা ফাটেনি এবং এখন পর্যন্ত সেগুলো ১,২২০ জন কুয়েতি এবং ৪০০ জন ইরাকী নাগরিকের নিহতের কারণ হয়েছে।

. বিভিন্ন দেশের উপর আমেরিকার রাসায়নিক ও মরণাস্ত্রের হামলা

বাহামা উপদ্বীপ (Bahama Islands):

৪০ এর দশকের শেষের দিকে এবং ৫০ এর দশকের শুরুর দিকে আমেরিকা, কানাডা ও ব্রিটেনের যৌথ টিম স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর এমন ব্যাকটেরিয়া (bacteria) এই এলাকায় ছড়িয়েছে, যা প্রশান্ত মহাসাগরের এই এলাকার জন্য মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ ছিলতাদের এই পরীক্ষার কারণে হাজার হাজার জানোয়ার মারা গেছে, আর মানুষের ক্ষয় ক্ষতির অনুমান ছিল অসম্ভব। এ সম্পর্কিত বিষয়াদি আজও গোপন আছে।

কানাডা (Canada):

আমেরিকা ১৯৫৪ ঈ. সনে কানাডার ‘উইনিপেগ’ (Winnipeg) শহরে ট্রাক দিয়ে ‘জিংক কেডমিয়াম সালফাইড’ (zinc cadmium sulfide) ছিটিয়েছে যা তাদের রাসায়নিক ও মরণাস্ত্র পরীক্ষার অংশ ছিল

চীন (China) এবং কোরিয়া (Korea):

১৯৫২ ঈ. এর শুরুতে যখন কোরিয় যুদ্ধ চলছিল তখন চীন অভিযোগ করল যে, আমেরিকা কোরিয়া এবং দক্ষিণ পূর্ব চীনে বিরাট সংখ্যক বিভিন্ন ধরণের ব্যাকটেরিয়া, পোকামাকড়, বহু জানোয়ার ও মাছের পচাগলা অংশ এবং অত্যন্ত আশ্চর্যজনক আরো বিভিন্ন জিনিস ফেলছে; যেগুলো বিভিন্ন রোগের কারণ হচ্ছে। চীন সরকার এও জানিয়েছে যে, এন্থ্রাক্স মহামারি এবং এনসিফ্লাইটিস (encephalitis) এর কারণে অত্যন্ত দ্রুততার সাথে মৃত্যু বাড়ছে। এই অভিযোগের প্রমাণ স্বরূপ চীন সরকার ১৩৬ জন আমেরিকান বায়ু সেনাকে গ্রেফতার করে তাদের সাক্ষ্য স্বীকারোক্তি প্রচার করেছে; যারা ধ্বংসাত্মক উপকরণ ভর্তি বিমান উড়াতো। এমনকি জীবাণু বোমা ও পোকামাকড়ের ছবিও তারা প্রকাশ করেছে। পাইলটরা সবাই এই অভিযোগ স্বীকার করেছিল, পরে নিজ দেশে গিয়ে কোর্টমার্শালের ভয়ে তারা নিজেদের দেওয়া জবানবন্দি ফিরিয়ে নিয়েছে। সেই পাইলটদের মধ্যে কেউ কেউ এটাও জানতো না যে, সে যা ফেলছে তা কি অগ্নিকুণ্ড পাকানো বারুদ নাকি জীবাণু, তারা তখন কঠিন মানসিক চাপের মধ্যে চলতো।

আমেরিকা কোরিয়াতে অত্যধিক পরিমাণে ‘নেপাম’(napalm) ফেলেছে। এক অনুমান অনুযায়ী ১৯৫২ ঈ. সনে দৈনিক প্রায় ৭০ হাজার গ্যালন বিষাক্ত পদার্থ ফেলা হতো। ১৯৮০ ঈ. তে জনসম্মুখে এটা প্রকাশ পায় যে, ১৯৬৭ ঈ. থেকে ১৯৬৯ ঈ. পর্যন্ত সময়ে আমেরিকা, দক্ষিণ ও উত্তর কোরিয়ার মাঝামাঝি উত্তরের সীমান্তে বেসামরিক জোনের তেইশ হাজার ছয়শত সাত একর (২৩,৬০৭) ভূমির ফসল নষ্ট করার জন্য ‘এজেন্ট অরেঞ্জ’ (agent orange) নামক বিষাক্ত পদার্থ ছিটিয়েছে।

ভিয়েতনাম (Vietnam):

১৯৬০ ঈ. এর শুরু থেকে প্রায় এই পুরা দশ জুড়ে, আমেরিকা উত্তর ভিয়েতনামের ৩০ লক্ষ একর ভূমির উপর (এর মধ্যে লাওস ও কম্বোডিয়ার কিছু এলাকা অন্তর্ভুক্ত আছে) লক্ষ লক্ষ টন হেরবিসাইড (herbicide) ছিটিয়েছে। যার উদ্দেশ্য ছিল ফসল নষ্ট করা এবং ঐ সব ঘন গাছগাছালিকে পরিষ্কার করা, যেগুলো দুশমনের আত্মরক্ষায় সহযোগী ছিলহারবিসাইডের ব্যবহার এবং বিশেষত এজেন্ট অরেঞ্জের ব্যবহার ভিয়েতনামকে দূষিত করে ফেলেছে। এরই সাথে ৫০০ পাউন্ড ডাই অক্সিনের (dioxin) ব্যবহার ধ্বংসাত্মক বিষক্রিয়া সৃষ্টি করেছে। এটা অত্যন্ত বিষাক্ত পদার্থ। এতোটা বিষাক্ত যে, যেমনটা ‘নার্ভ গ্যাস’ মানব জীবনের জন্য বিষাক্ত। এর ব্যবহারে যেই সমস্যাগুলো বিস্তার লাভ করে তার মধ্যে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নষ্ট হওয়া, মানুষের শরীরে পুষ্টি তৈরিতে সমস্যা, জন্ম প্রতিবন্ধী হওয়া এবং মানসিক সমস্যাগুলোও অন্তর্ভুক্তএক গবেষণা অনুযায়ী নিউইয়র্কের জনসংখ্যা খতম করার জন্য, শহরে সাপ্লাইকৃত পানির মধ্যে মাত্র ৩ আউন্স ডাইঅক্সিন (dioxin) যথেষ্ট।

ভিয়েতনামে এই বিষাক্ত হামলার কারণে ২০ লক্ষ মানুষ আক্রান্ত হয়েছেভিয়েতনাম সরকারের অনুমান অনুযায়ী বিষ ছিটানো এলাকার ৫ লক্ষ শিশু, জন্মগত প্রতিবন্ধী হয়ে জন্ম নিয়েছে। তাছাড়া আমেরিকান সৈন্যরা ভিয়েতনাম জনগণের উপর ‘সিএস’ ও ‘ডিএম’ এবং ‘সিএন’ নামক গ্যাস হামলা করেছে। তবুও আমেরিকার কর্মকর্তারা বার বার এটাই বুঝাতে চেয়েছে যে, এটা কোন রাসায়নিক যুদ্ধ নয় বরং দাঙ্গা হাঙ্গামা দমনের হাতিয়ার মাত্র। এই গ্যাসগুলো ভিয়েতনামে দ্বিধাহীনভাবে ব্যবহার করা হয়েছে। ‘সিএস’ গ্যাস প্রচণ্ড আক্রান্তকারী গ্যাস। এর কারণে নিয়ন্ত্রণহীন প্রচণ্ড বমি শুরু হয়ে যায়। ভিয়েতনামে এই গ্যাসগুলোর কারণে অগণিত মহিলার বাচ্চা নষ্ট হয়েছে। এই গ্যাসের ক্রিয়ায় চোখের পাতা ঝরা, চেহারার উপর ফোসকা পড়া, ফোড়া ফেটে যাওয়া এবং চামড়া ঝলসে যাওয়া ইত্যাদি অন্তর্ভুক্তআমেরিকান প্রতিরক্ষা প্রতিমন্ত্রী ‘সাইরাস ভেন্স’ (Cyrus Vance) এটা স্বীকার করেছেন যে, এসব হামলায় সাইনাইড (cyanide ) এবং আর্সেনিক (arsenic) ব্যবহৃত হয়েছিল। নেপাম এবং নেফথলীন (naphthalene) নামক রাসায়নিক পদার্থের ব্যবহার এই হিসাবের বাইরে ছিল

লাওস (Laos):

আমেরিকান সৈন্যরা ‘অপারেশন টেইলউইন্ড’ (Operation Tailwind) এর অধীনে ১৯৭০ ঈ. সনের সেপ্টেম্বরে লাওসের উপর আক্রমণ করে। এই অপারেশনের সময় আমেরিকান সৈন্যরা ‘লাওটিয়ান’ গ্রামে একটি সেনাঘাঁটির উপর হামলায় ‘সারিন গ্যাস’ ব্যবহার করেছে। এই সারিন গ্যাস এতোটা বিষাক্ত ছিল যে, যদি এর বাষ্প শ্বাসপ্রশ্বাসের দ্বারা মানব দেহে প্রবেশ করে, তাহলে কয়েক মিনিটেই তার মৃত্যু হতে পারে। এর সামান্য এক ফোটা মানব দেহ স্পর্শ করলে এতেই মৃত্যু হতে পারে। এটা এমনকি কাপড় চোপড় ভেদ করেও আক্রান্ত করতে পারে।

আলোচ্য অপারেশনের সময় আমেরিকানরা প্রথমে যখন হামলার উপযুক্ত পথ খুঁজছিল, তখন তাদেরকে উত্তর ভিয়েতনামী এবং লাও সিপাহীদের সঙ্গে কঠিন মোকাবেলার সম্মুখীন হতে হয়েছেতখন তাদের সাহায্যের আবেদনের প্রেক্ষিতে বিমান বাহিনী ‘সারিন গ্যাস’ এর টিন ফেলা শুরু করে দেয়। এর ফলে ভিয়েতনামী এবং লাও যোদ্ধাদের শরীর অসাড় হয়ে যায় এবং তারা বমি শুরু করে দেয় আর কেউ কেউ মারা যায়। এই গ্যাস কিছু আমেরিকান সৈন্যকেও আক্রান্ত করে ফেলে, যাদের মধ্যে একজন আজ পর্যন্ত তাতে ভুগছেএই অপারেশনের ফলে শ’এর উপরে মানুষ নিহত হয়েছে, যাদের মধ্যে সেনা ও সাধারণ সবাই আছে। এমনকি আমেরিকার সৈন্যও নিহত হয়েছে।

আমেরিকান জয়েন্ট চীফ অফ স্টাফের সাবেক চেয়ারম্যান ‘এ্যাডমিরাল থমাস মুরার’ (Thomas Moorer) ৭ জুন ১৯৯৮ ঈ. –তে ‘সিএনএন’ (CNN) এর প্রোগ্রাম ‘নিউজস্ট্যান্ড সিএনএন এন্ড টাইম’ (NewsStand CNN & Time) এর মধ্যে এই ঘটনাকে সত্বায়ণ করেন। এতে করে তখন আমেরিকাতে হৈচৈ পড়ে যায়, বড় বড় রুইকাতলরা [হেনরি কিসিঞ্জার, কলিন পাওয়েল] এর বিরুদ্ধে উঠেপড়ে লাগে, সেনাবাহিনী উচ্চবাচ্য শুরু করে, আমেরিকান মদদ পুষ্ট সাংবাদিকরা হাহুতাশ শুরু করে, পেন্টাগনও এর বিরুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। শেষ পর্যন্ত সিএনএনকে বিষয়টি প্রত্যাহার করতে হয়, এ্যাডমিরালকেও নিজের কথা প্রত্যাহার করতে হয়, অতঃপর এই প্রোগ্রামের উপস্থাপকদেরকে ছুটি দিয়ে দেওয়া হয়।

পানামা (Panama):

১৯৪০ ঈ. থেকে ১৯৯০ ঈ. পর্যন্ত আমেরিকা সবধরনের রাসায়নিক অস্ত্র [যেমন, মাস্টার্ড গ্যাস, ভিএক্স (VX), সারিন, হাইড্রোজেন সায়ানাইড (hydrogen cyanide) ইত্যাদি] পরীক্ষার জন্য, পানামাকে পরীক্ষাগার হিসাবে ব্যবহার করেছে। হাজার হাজার টন রাসায়নিক পদার্থ রকেট, কার্তুজ এবং ল্যান্ডমাইনের সুরতে ব্যবহৃত হয়েছে। ১৯৬০ এবং ১৯৭০ এর দশকে আমেরিকান সৈন্যরা পানামাতে ‘এজেন্ট অরেঞ্জ’ এবং ফসল ধ্বংস করার আরো অন্যান্য বিষাক্ত রাসায়নিক পদার্থ যেমন, হারবিসাইড (Herbicides) এর গোপন পরীক্ষা চালিয়েছে। অনেক নাগরিক ও সৈন্য এই ধ্বংসাত্মক রাসায়নিক পদার্থে আক্রান্ত হয়েছে। এজেন্ট অরেঞ্জ সমৃদ্ধ ডাইঅক্সিন ভর্তি হাজার হাজার ট্রাক সমুদ্র জাহাজের মাধ্যমে পানামায় পাঠানো হয়েছে। সেখানের বন জঙ্গল এবং চিত্ত বিনোদনের জায়গাগুলোতে সেগুলো ছিটানো হয়েছে। উদ্দেশ্য ছিল এখান থেকে এগুলোর তেজস্ক্রিয়া যাচাই করা এবং এটা বুঝা যে, যখন এগুলো উত্তর পূর্ব এশীয় ফ্রন্টে ব্যবহার করা হবে তখন এর ক্রিয়া কেমন হবে?

অনুরূপভাবে ১৯৮৯ ঈ. সনে পানামার উপর আমেরিকান হামলার সময়, সেখানকার ‘পাকুরা’ (Pacora) গ্রামের উপর আমেরিকান দক্ষিণ কমান্ড, হেলিকপ্টার ও বিমানের সাহায্যে রাসায়নিক হামলা করে। সেখানকার অধিবাসীরা বলেছেন যে, এমন পদার্থ ফেলা হয়েছে যার কারণে তাদের চামড়া জ্বলা শুরু হয়েছে এবং তাদের ডাইরিয়া শুরু হয়েছে। আমেরিকার একাজটি করার উদ্দেশ্য ছিল, এই এলাকার বাসিন্দাদেরকে পানামী সেনাবাহিনীকে সাহায্য করা থেকে বিরত রাখা।

কিউবা (Cuba):

কিউবা থেকে সোভিয়েত ইউনিয়নের আমদানি করা চিনিতে আমেরিকার সিআইএ এজেন্টরা বিভিন্ন সুযোগে বিষ মিশ্রিত করেছে। এর উদ্দেশ্য ছিল, সোভিয়েত ইউনিয়ন বিরোধী বা সমাজতন্ত্র বিরোধী অপারেশন পরিচালনা করা। সিআইএ’র এক কর্মকর্তা যিনি কিউবার বিরুদ্ধে আমেরিকার বিশ্ব ব্যাপী পদক্ষেপে সরাসরি শরিক ছিলেন, তিনি এই বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, ‘কিউবা থেকে যেই বিশাল পরিমাণের চিনি বিশ্ব ব্যাপী বিক্রি হয়েছে, সেগুলোতে আমরা বিষ মিশ্রিত করেছিলাম’

অনুরূপভাবে ১৯৬২ ঈ.-তে আমেরিকা এক গোয়েন্দা কর্মকর্তার মাধ্যমে একজন অভিজ্ঞ কৃষিবিদকে [যিনি কিউবা সরকারের উপদেষ্টা হিসাবে কাজ করতেন] ৫০০০ ডলার দিয়েছে শুধু এই কাজের জন্য যে, সে কিউবার ‘এলিফ্যান্ট বার্ড’ [উটপাখির মত বিশালাকারের পাখি] এর মধ্যে ‘নিউক্যাসেল’ নামক (Newcastle disease) জীবাণু ঢুকিয়ে দিবে। এর ফলে ৮ হাজারেরও বেশি এলিফ্যান্ট বার্ড ধ্বংস হয়েছে। ১৯৬৯ ঈ. এবং ১৯৭০ ঈ. এর মাঝামাঝি থেকে সিআইএ কিউবার চিনির ফসল ধ্বংস করা এবং তাদের অর্থনীতি ধ্বংস করার জন্য, মৌসুমের মধ্যে কৃত্রিম পরিবর্তন আনার নতুন টেকনোলজি ব্যবহার করেছে। ক্যালিফোর্নিয়াতে অবস্থিত নৌ অস্ত্র কেন্দ্র (China Lake Naval Weapons Center) থেকে [যেখানে এই নতুন টেকনোলজি তৈরি করা হয়] বিমান উড়ত এবং কাঙ্ক্ষিত স্থানে মেঘ তৈরি করে চলে যেতো। এই কৃত্রিম মেঘ অনাবাদী জমিতে তুফানের মত বৃষ্টি বর্ষণ করতো আর আখের ক্ষেত ও ফসল বৃষ্টি থেকে মাহরূম থাকত।

১৯৭১ ঈ. এর এক অপারেশনে সিআইএ কিউবা সীমান্তে এমন জীবাণু নিক্ষেপ করেছে যা ‘আফ্রিকান শুকরের জ্বর’ (African Swine Fever) নামক রোগের কারণ হয়। এই জীবাণু হামলার ৬ সপ্তাহ পর কিউবাতে মহামারী দেখা দিল এবং সরকারকে এই ভয়ে ৫ লক্ষ শুকর, নিজে থেকে হত্যা করতে হয়েছে। যাতে করে কোথাও জাতীয়ভাবে অন্য পশুর মাঝে এই রোগ ছড়িয়ে না পড়ে।

এর ১০ বছর পর এই মহামারি হামলার টার্গেট করা হয়েছে জনগণকে এবং তখন ‘ডিএইচএফ’ (Dengue Hemorrhagic Fever) তথা ‘ডেঙ্গু জ্বর’ রোগটি উপদ্বীপে ছড়িয়ে পড়ে। এই রোগ রক্ত চোষা পোকা [সাধারণত মশা] এর মাধ্যমে ছড়ায়। মারাত্মক ঠাণ্ডা ও সর্দি, হাড্ডিতে অসহ্য ব্যথা; এই রোগের আলামত। ১৯৮৭ ঈ. সালে মে থেকে অক্টোবর পর্যন্ত কিউবাতে ১ লক্ষ ৩০ হাজার লোক এই রোগে আক্রান্ত হয়েছে। এর মধ্যে মৃতের সংখ্যা ১৫৮ জনে পৌঁছেছেযার মধ্যে ১০১ জনের বয়স ছিল ১৫ বছরের নীচে।

১৯৫৬ ঈ. ও ১৯৫৮ ঈ. এর মাঝামাঝিতে জর্জিয়ায় (Georgia) এবং ফ্লোরিডায় (Florida) মশার ঝাঁকের উপর চালানো আমেরিকান সৈন্যবাহিনীর পরীক্ষা নিরীক্ষা, এই রোগকে ছড়ানোর ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা পালন করেছে। এসব পরীক্ষার দ্বারা আমেরিকানদের এটাই জানা উদ্দেশ্য ছিল যে, পোকা মাকড়ের মাধ্যমে ছড়ানো রোগ জীবাণু, মরণঘাতী যুদ্ধে হাতিয়ার হিসাবে ব্যবহার করা যায় কি না? এই পালিত মশাগুলো ‘এডিস এজিপ্টি’ (aedes aegypti) গ্রুপের সাথে সম্পৃক্ত যা অন্যান্য রোগের সাথে সাথে ডেঙ্গু জ্বরের বিশেষ কারণ হয়ে থাকে।

১৯৬৭ ঈ. তে এই রিপোর্ট প্রকাশ পেল যে, মেরিল্যান্ড (Maryland) এর ফোর্ট ডিট্রিক (Fort Detrick) এর সরকারি প্রধান অফিসে যেই রোগগুলো গবেষণাধীন ছিল, তার মধ্যে ডেঙ্গু জ্বরও অন্তর্ভুক্ত ছিলতখন গবেষণা করা হচ্ছিল যে, এই রোগগুলোকে মরণঘাতী হাতিয়ার হিসাবে ব্যবহার করা যায় কি না?

২১ অক্টোবর ১৯৯৬ ঈ. এর আকাশ খুবই পরিষ্কার ছিলকিউবার মেটানযাস (Matanzas) প্রদেশের উপর বিমান উড়াতে গিয়ে কিউবার এক পাইলটের দৃষ্টি পড়ল এমন এক বিমানের উপর, যেটা আকাশে ৭ বার কোন এক পদার্থের গোল্লা ফেলেছে। সাথে সাথে সে কন্ট্রোল টাওয়ারের সাথে যোগাযোগ করে বিষয়টি জানিয়ে দিলতখন জানা গেল যে, সেটা ছিল আমেরিকান বিমান। গ্র্যান্ড কায়মান উপদ্বীপের (Grand Cayman Island) রুটে কলম্বিয়া (Columbia) যাওয়ার জন্য সেটাকে কিউবার উপর দিয়ে অতিক্রম করার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। অতঃপর ১৮ ডিসেম্বর ১৯৯৬ ঈ. সনে কিউবাতে হঠাৎ উদ্ভিদ ভক্ষক মহামারি ‘থ্রিপ্স পাল্মি’ (Thrips palmi) নামক পোকার মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়াটা প্রকাশ পেল। এর পূর্বে এই পোকা কখনোই কিউবাতে দেখা যায়নি। এই পোকা ফসলকে শুধু পুরাপুরি ধ্বংসই করতো না; বরং এর সাথে সাথে এগুলোর বিরুদ্ধে প্রতিরোধমূলক সকল ব্যবস্থা মোকাবেলারও শক্তি রাখতো।

কিউবার বিরুদ্ধে আমেরিকার রাসায়নিক ও মরণঘাতী যুদ্ধের পরিপূর্ণ বিস্তারিত রিপোর্ট আজ পর্যন্তও সামনে আসে নাই। তবে অতীতে কাস্ত্রো (Castro) কিউবাতে বিভিন্ন ধরণের মহামারি ছড়ানোর ক্ষেত্রে আমেরিকা সরকারকে দোষারোপ করেছেন। যে মহামারিগুলোতে অসংখ্য গবাদি পশু মারা গেছে এবং সীমাহীন ফসল ধ্বংস হয়েছে।

. আমেরিকার নিজ দেশে রাসায়নিক ও মরণঘাতী হাতিয়ারের ব্যবহার

উপরের ঘটনাগুলো ছাড়াও আমেরিকা সরকার এবং সিআইএ, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর নিজ দেশের বিভিন্ন রাষ্ট্রে নিজের জনগণ ও সৈন্যদের উপর বিভিন্ন তেজস্ক্রিয়, রাসায়নিক ও মরণঘাতী পদার্থ ছিটিয়ে ছিটিয়ে তার প্রভাবের সঠিক তথ্য নিয়েছে। অতঃপর তা নিজেদের অস্ত্রের ষ্টকে অন্তর্ভুক্ত করেছে। এসব পরীক্ষার উদ্দেশ্য ছিল এই বিষয়গুলো জানা যে,

. এই পদার্থ নিক্ষেপের সঠিক পরিমাণ কি হবে?

. এই পদার্থের তেজস্ক্রিয়া দূর হতে কেমন সময় লাগে?

. বিকিরণ ও মরণঘাতী যুদ্ধের সম্ভাবনা কতটুকু?

. এই নার্ভ ব্রেকার গ্যাসগুলো এবং তেজস্ক্রিয় ও মরণঘাতী পদার্থগুলো কতটুকু প্রভাব সৃষ্টি করে?

. এটমিক তেজস্ক্রিয় পদার্থ বিশেষত প্লুটোনিয়াম (plutonium) এর সাথে এই পদার্থ ব্যবহারে কেমন প্রভাব সৃষ্টি হয়?

. মানব মস্তিষ্ককে আয়ত্তে আনার মেডিসিন ‘এলসিডি’ কিভাবে প্রভাব সৃষ্টি করে?

সানফ্রান্সিসকো সামুদ্রিক এলাকা (San Francisco Bay Area):

১৯৫০ ঈ. সনে সেপ্টেম্বরের ২০ থেকে ২৭ পর্যন্ত একটি সামুদ্রিক জাহাজের মাধ্যমে আমেরিকান সেনারা ‘সানফ্রান্সিসকো’র সমুদ্র সীমায় ৬ টি মরণঘাতী হামলার পরীক্ষা করেছে। যার মধ্যে দুই ধরণের ব্যাকটেরিয়া তথা বেসীলাস গ্লোবিজি (Bacillus globigii) এবং সিরাটিয়া মার্সেসেন্স (Serratia marcescens) ব্যবহার করা হয়েছে। এই পরীক্ষার উদ্দেশ্য হিসাবে বলা হয়েছে, ‘উপকূলীয় কোন শহরের উপর সমুদ্রের দিক থেকে বাতাসের মাধ্যমে করা মরণঘাতী হামলার ক্ষয় ক্ষতির পর্যবেক্ষণ করা’

২৯ সেপ্টেম্বর থেকে স্টানফোর্ড (Stanford) ইউনিভার্সিটি; সানফ্রান্সিসকো হাসপাতালে আসা রুগীদেরকে সিরাটিয়া মার্সেসেন্স ব্যাকটেরিয়ায় আক্রান্ত পাওয়া যায়। এই হাসপাতালে এদের মত সংক্রমণের রুগী আগে আর কখনো দেখা যায়নি। ১১ জন রুগীর মাঝে এই সংক্রমণ নির্ণয় করা হয়েছে যাদের এক জন মৃত্যু বরণ করেছে। ১৯৭৭ ঈ. তে নিউইয়র্কের স্টেট ইউনিভার্সিটির মাইক্রোবায়োলজির প্রফেসর এই ব্যাপারে একটি রিপোর্ট পেশ করেন একজন সিনেট কমিটির সামনে। এই রিপোর্ট মোতাবেক সিরাটিয়া মার্সেসেন্স ব্যাকটেরিয়ার সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়াটা, একজন সুস্থ মানুষকে অসুস্থ বানানো এবং আগের রুগীকে মারাত্মক রুগী বানানোর কারণ হতে পারে।

মিনয়াপোলিস (Minneapolis):

১৯৫৩ ঈ.-তে এই শহরের চার জায়গায় জিংক কেডমিয়াম সালফাইড (zinc cadmium sulfide) ৬১ বার ছিটানো হয়েছে। আমেরিকার পরিবেশ সংরক্ষণ সংস্থা ‘ইপিএ’ (Environmental Protection Agency) এর রিপোর্ট অনুযায়ী, এই পদার্থে কেডমিয়ামের উপস্থিতির কারণে এটা মারাত্মক ক্ষতিকারক হয়ে যায়। ১৯৭২ ঈ. তে আমেরিকান সাবেক একজন সেনা বিজ্ঞানী একটি প্রবন্ধে লিখেছেন যে, জিংক কেডমিয়াম সালফায়েডের সাথে কেডমিয়ামের মিশ্রণে সেটা বিষাক্ত হয়ে যায় এবং খোলা আকাশে এটাকে পরীক্ষায় ব্যবহার করা, স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ঝুঁকির কারণ হতে পারে। এর বিজ্ঞানীর কথা অনুযায়ী জিংক কেডমিয়াম সালফাইড ফুসফুস নষ্ট হওয়া, কিডনির তীব্র প্রদাহ, এবং যকৃত দুর্বলতার কারণ হতে পারে।

ওয়াশিংটন (Washington):

১৯৬০ ঈ. এর শুরুতে আমেরিকান সৈন্যরা গোপনভাবে ‘ওয়াশিংটন ন্যাশনাল এয়ারপোর্ট’ এ বিরাট সংখ্যক ব্যাকটেরিয়া ছেড়েছে। এই পরীক্ষার উদ্দেশ্য ছিল এটা জানা যে, বিমান যাত্রীদের মাধ্যমে দুশমনের কোন এজেন্টের জন্য, সারা দেশে গুটি বসন্তের জীবাণু ছড়ানো কতটুকু সম্ভব হবে? এই পরীক্ষায় ‘বেসিলাস সাবটিলিস’ (bacillus subtilis) ব্যাকটেরিয়া ব্যবহার করা হয়েছে। ‘জর্জ টাউন মেডিকেল সেন্টারের’ মাইক্রোবায়োলজির একজন প্রফেসরের রিপোর্ট অনুযায়ী এই ব্যাকটেরিয়া বাচ্চা, বৃদ্ধ, দুর্বল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার লোক, কর্কটরাশি, হার্টের রুগী এবং এজাতীয় অন্যান্য রুগীদের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকারক হতে পারে। এ জাতিয় পরীক্ষা ওয়াশিংটনের গ্রেহাউন্ড (Greyhound) বাস স্টেশনেও করা হয়েছে।

ফ্লোরিডা (Florida):

১৯৫৫ ঈ.-তে সিআইএ ‘টাম্পা’ উপসাগর (Tampa Bay) সীমায় খোলা আকাশের মধ্যে ‘হুপিং কাশির’ ব্যাকটেরিয়া ছড়ানোর পরীক্ষা করে। এই পরীক্ষার আগে ১৯৫৪ ঈ. তে হুপিং কাশির রুগী সংখ্যা ছিল ৩৩৯ জন, যাদের মধ্যে একজনের মৃত্যু হয়েছে। এই পরীক্ষার পর ১৯৫৫ তে ‘হুপিং কাশির রুগী সংখ্যা পৌঁছেছে ১০৮০ জনে। এদের মধ্যে ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

. আমেরিকান সেনাবাহিনী কর্তৃক অন্য দেশকে রাসায়নিক ও মরণাস্ত্র যুদ্ধের প্রশিক্ষণ

মিশর (Egypt):

১৯৬৯ ঈ. সনে এই বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে যে, আমেরিকান সেনারা গত কয়েক বছর যাবত বিদেশী বিশেষজ্ঞদেরকে রাসায়নিক ও মরণাস্ত্র যুদ্ধের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে। ৩৬টি দেশ; যাদের মধ্যে মিশর, ইসরাইল, ইরাক, লেবানন, সৌদিআরব, যুগোশ্লোভিয়া এবং উত্তর ভিয়েতনাম অন্তর্ভুক্ত ছিলতাদের ৫৫০ জন ব্যক্তিকে ‘অ্যালবামা’র (Alabama) ফোর্ট ম্যাকক্লিলেনে (Ft. McClellan) সেনাবাহিনীর কেমিক্যাল স্কুলে এই প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছিলমিশরীয় বিশেষজ্ঞরা এই প্রশিক্ষণ গ্রহণের পর ১৯৬৭ ঈ.-তে ইয়েমেনের উপর বিষাক্ত গ্যাস হামলা করেছে। আন্তর্জাতিক সংস্থা ‘রেড ক্রস’ (Red Cross) এটা সত্যায়ণ করেছে যে, মিশরীয় বিমানের মাধ্যমে বিষাক্ত গ্যাস ভর্তি অনেকগুলো টিন ইয়েমেনের উপর ফেলা হয়েছে। এই হামলার কারণে ১৫০ জন লোক দম আটকিয়ে, প্রচণ্ড কাশিতে এবং অতিরিক্ত রক্ত ক্ষরণের কারণে মারা গেছে। পরবর্তীতে আমেরিকান প্রতিরক্ষা বিভাগও এই ঘটনা সত্যায়ণ করেছে।

দক্ষিণ আফ্রিকা (South Africa):

১৯৯৮ ঈ. সনে এই বিষয়টি একটি কমিশনের সামনে এসেছে যে, আমেরিকা সরকার দক্ষিণ আফ্রিকার উদাসীন ও নির্বোধ সরকারী দলকে উৎসাহ দিয়ে চলছে যে, তারা যেন দেশের কৃষ্ণাঙ্গ জনগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে রাসায়নিক ও মরণঘাতী হাতিয়ার ব্যবহার করে। দক্ষিণ আফ্রিকার জেনারেল ডাক্তার ওউটার বেসন (Wouter Basson) এই বিষয়টিকে সত্যায়ণ করে বলেন, ‘আমেরিকার মেজর জেনারেল উইলিয়াম অগারসন (William Augerson) আমাকে এই কাজে উদ্বুদ্ধ করে বলেছেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতিতে রাসায়নিক যুদ্ধ সবচেয়ে উত্তম কর্মপদ্ধতি, কেননা এতে এলাকার অবকাঠামো এবং সমস্ত সম্পত্তি ঠিক থাকে; শুধুমাত্র মানুষ মারা যায়। আফ্রিকার গরম আবহাওয়া এই হাতিয়ার ব্যবহারের জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত, কেননা এখানে বিষক্রিয়া ভালভাবে ছড়াতে পারবে। অর্থাৎ টার্গেটের লোকদের ঘাম ও রক্তের মাধ্যমে বিষক্রিয়া খুব সহজে পুরা শরীর আক্রান্ত করে ফেলবে’

দক্ষিণ আফ্রিকার রাসায়নিক ও মরণাস্ত্র পরীক্ষার প্রোগ্রাম, আমেরিকার পরীক্ষার কথা অন্তরে তাজা করে দিল। সেসব মেডিসিন পরীক্ষায় কৃষ্ণাঙ্গ সৈনিকদেরকে পশুর স্থলাভিষিক্ত হিসাবে ব্যবহার করা হয়েছিল। তখন এমন এক বিষ তৈরি করা হয়েছিল যেটা হঠাৎ হার্ট এটাকের কারণ হয় এবং এর প্রয়োগে হত্যার কোন নাম গন্ধও বুঝা যায় না, সম্পূর্ণ স্বাভাবিক মৃত্যু মনে হয়। এছাড়াও বিভিন্ন রোগের জীবাণুর মাধ্যমে পান করার পানিকেও বিষাক্ত করা হয়েছিল।

ইরাক (Iraq):

জানুয়ারি ১৯৯৮ ঈ. সনে জাতির উদ্দেশ্যে এক ভাষণে প্রেসিডেন্ট ক্লিন্টন ইরাককে এই বিষয়টি স্পষ্ট করার চেষ্টা করেছেন যে, তারা যেন রাসায়নিক ও মরণঘাতী এবং এটমিক হাতিয়ার বানানো থেকে বিরত থাকে। কিন্তু এখানে এই বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে, ইরাকে সাদ্দাম হোসাইনকে মরণাস্ত্র যুদ্ধের উপকরণগুলো এই আমেরিকান বিজ্ঞানীরাই ব্যবস্থা করে দিয়েছিল।

১৯৯৪ ঈ. সনে আমেরিকান সিনেটের রিপোর্ট অনুযায়ী ১৯৮৫ থেকে ১৯৮৯ ঈ. পর্যন্ত *আমেরিকার বাণিজ্য বিভাগের লাইসেন্স প্রাপ্ত একটি বেসরকারি আমেরিকান সরবরাহকারী কোম্পানি জৈবিক মূল উপাদান ইরাকে রপ্তানি করেছে। এই উপাদান নিম্নোক্ত জীবাণু সমৃদ্ধ ছিল, যেগুলো মারাত্মক ধ্বংসাত্মক রোগের কারণ হয়ে থাকে –

* বেসিলাস এনথ্রাসিস (Bacillus Anthracis); এটা এনথ্রাক্স রোগের কারণ হয়।

* ক্লোসট্রিডিয়াম বোটুলিনাম (Clostridium Botulinum); এটা বিষক্রিয়ার অন্যতম উপাদান।

* হিস্টোপ্লাজমা কেপসুলেটাম (Histoplasma Capsulatum); এটা ফুসফুস, মস্তিষ্ক, মেরুদণ্ড, হাড্ডি এবং হার্টের রোগের কারণ হয়।

* ব্রোসিলা মিলিটেনসিজ (Brucella Melitensis); এই ব্যাকটেরিয়া শরীরের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলোকে ক্ষতি করে।

* ক্লোসট্রিডিয়াম পারফ্রিংগেন্স (Clostridium Perfringens); এটা মারাত্মক বিষাক্ত ব্যাকটেরিয়া, যা শারীরিক গতি প্রকৃতিতে মারাত্মক বিঘ্নতা সৃষ্টি করে।

* ক্লোসট্রিডিয়াম টিটানি (Clostridium Tetani); এটা মারাত্মক বিষক্রিয়া সৃষ্টি করে এবং খিঁচুনি (Tetanus) রোগের কারণ হয়।

. সারা বিশ্বে মাদক ছড়ানোতে আমেরিকার ভূমিকা

দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশ থাইল্যান্ড, লাওস এবং বার্মা [যারা বিশ্বের আফিম উৎপাদনের বড় উৎস এবং মাদক তৈরির হর্তাকর্তা] এসব এলাকাগুলো থেকে সিআইএ’র পরিপূর্ণ পৃষ্ঠপোষকতায় ‘এয়ার আমেরিকার’ মাধ্যমে পুরা দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় মাদক সাপ্লাই চলছে। এই বিমানগুলো আফিম নিয়ে সেই জায়গা পর্যন্ত আসে যেখানে আফিম হিরোইনে পরিবর্তন হয়। অতঃপর এগুলো সমুদ্র জাহাজের মাধ্যমে পশ্চিমা ক্রেতাদের কাছে পৌঁছানো হয়। এতে প্রথমত, সিআইএ’র সামরিক ও রাজনৈতিক মিত্রদের নিজস্ব ও অন্যান্য প্রয়োজন পুরা হয়। দ্বিতীয়ত, খোদ সিআইএ’র লকার ভরা হয়। অনুরূপভাবে সিআইএ’র গোপন অপারেশনের জন্য বাজেটের অতিরিক্ত পূঁজিও এখান থেকে অর্জিত হয়ে যায়। এসব কাজ কর্মই উত্তর পূর্ব এশিয়ার অধিকাংশ ব্যক্তিকে হিরোইনের আসক্ত বানিয়েছে। হিরোইনকে ‘দক্ষিণ লাওসে’ অবস্থিত সিআইএ’র হেডকোয়ার্টারের এক ল্যাবরেটরিতে বিশুদ্ধভাবে প্রস্তুত করা হয়। অর্থাৎ, এই সব কাজের দ্বারা দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া বিশ্বের ৭০% অবৈধ আফিম উৎপাদন কেন্দ্র এবং আমেরিকার বাজারে হিরোইনের ক্রমবর্ধমান চাহিদাকে পুরা করার বিরাট বড় সরবরাহকারী হয়ে গেছে।

পানামা (Panama):

৭০ এবং ৮০ ঈ.-র দশকে পানামার প্রধান, জেনারেল ম্যানুয়াল নোরিগা (General Manuel Noriega) সিআইএ’র পুরাতন কর্মচারী ছিল এবং তাদের কয়েকটি গোপন এজেন্ডার অংশীদার ছিলএই ব্যক্তি বিরাট বড় মাদক পাচারকারী ছিল এবং কালোটাকাকে সাদা করার কাজে জড়িত ছিলতার এই কাজে সিআইএ’র পরিপূর্ণ পৃষ্ঠপোষকতা ছিলএমনকি ১৯৮১ ঈ.-তে সিআইএ’র ডাইরেক্টর, উইলিয়াম কেসি (William J. Casey) এই ঘোষণা করল যে, ‘আমি নোরিগাকে মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে সম্পর্কের ব্যাপারে এজন্য তিরস্কার করতাম না যে, পানামাবাসীরা মধ্য আমেরিকাতে বিশেষত ‘নিকারাগুয়া’তে (Nicaragua) আমাদের পলিসির পরিপূর্ণ রক্ষক ছিল এবং আমাদেরকে ভরপুর সহযোগীতা করছিল”

মধ্য আমেরিকা (Central America):

আমেরিকার মৌলিক একটি দর্শন হলো, ‘লোকদেরকে মাদক পাচার করতে দাও; হত্যা, যিনা, ধর্ষণ, অপহরণ ও জুলুম নির্যাতন করতে দাও; স্কুল ও হাসপাতাল জ্বালাতে দাও; যতক্ষণ তারা আমাদের হয়ে যুদ্ধ করছে, ততক্ষণ তারা আমাদেরই লোক। আমাদের দীর্ঘদিনের বন্ধু’

হন্ডুরাস’ (Honduras) এর পক্ষ থেকে আমেরিকাকে এ বিষয়ের অনুমতি দেওয়া হয়েছে যে, আমেরিকা তাদের দেশকে একটি বিরাট সামরিক ঘাটি বানাতে পারবে। এর বিনিময়ে সিআইএ এবং ডিইএ (Drug Enforcement Administration) এর পক্ষ থেকে হন্ডুরাসের ঐ সকল সেনা অফিসার ও সরকারী কর্মকর্তা এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদেরকে স্বাধীনভাবে ছাড় দেওয়া হয়েছে, যারা মাদক পাচারে লিপ্ত ছিলেন। সিআইএ সরাসরি নিজে হন্ডুরাসে মাদকের বিরাট বড় ব্যবসায়ী ‘এ্যালন হাইড’ (Alan Hyde) –কে সমস্ত অপরাধ মূলক কাজের গডফাদার হিসাবে স্বীকৃতি দিয়ে যাচ্ছিল। হাইডের মাদক লোড করা নৌকাগুলোর [যেগুলো পাচারের কাজে ব্যবহৃত হতো] নিরাপত্তার পূর্ণ জিম্মাদারি গ্রহণ করেছিল সিআইএ।

গুয়েতেমালা (Guatemala) –র সৈন্যদের এক গোপন সদস্যের সাথে সিআইএ’র দীর্ঘদিনের বন্ধুত্ব সম্পর্ক ছিলএই গোপন সদস্য অনেক মাদক ব্যবসায়ীকে আশ্রয় দিয়ে রেখেছিল

এ্যাল সালভাডরে’ (El Salvador) অবস্থিত ‘ইলোপাংগো’ (Ilopango) বিমান ঘাটি, সেখানকার গেরিলা যোদ্ধাদের সাথে লড়াই করার জন্য আমেরিকার কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিলআমেরিকান ‘ডিইএ’ এর কর্মকর্তা ‘কিলিরিনো কাস্টিলো’ (Celerino Castillo) বর্ণনা করেছেন, কিভাবে কিভাবে কোকেন ভর্তি বিমান সেখান থেকে উড়তো এবং কোন রকম ভয়ভীতি ছাড়া কিভাবে আমেরিকার বিভিন্ন জায়গায় রেখে যেতো, অতঃপর আবার নগদ টাকা নিয়ে ফিরে আসতো, আবার এই সব কিছু ঘটতো আমেরিকা সরকারের নিরাপত্তায়। ‘ইলোপাংগো’ এয়ারপোর্টের একটি হেঙ্গার ছিল সিআইএ’র মালিকানায়, আরেকটি ছিল জাতিয় নিরাপত্তা পরিষদের কাছে। যখন ‘কাস্টিলো’ এভাবে বিস্তারিতভাবে সরকারকে অবগত করলেন, তখন এর উপর কোন পদক্ষেপই নেওয়া হয়নি। উল্টো তাকে চাকরি থেকে অবসরে পাঠানো হয়েছে। অনুরূপভাবে ‘ডিইএ’এর অন্য একজন অফিসার যখন অভিযান চালিয়ে মাদক উদ্ধার করলেন এবং জিনিসপত্র জব্দ করলেন তখন কিছু অদেখা শক্তিশালী হাত এই কেস নিজেদের কব্জায় নিয়ে নিলো এবং সেই অফিসারকে দ্বীপান্তরিত করে দিলঅনুরূপ আরেকজন অফিসারকে টেক্সাস (Texas) থেকে ওয়াশিংটন ডেকে আনা হয়, কেননা সে সেই মাদক পাচারের উপর তদন্ত করছিল।

আরেকটি কারবার ছিল, হন্ডুরাসের জেনারেল জোসি বুইসো রোজো’র (Jose Bueso Roso), যার উপর হন্ডুরাসের প্রেসিডেন্টকে হত্যার ষড়যন্ত্রের অভিযোগ ছিল এই হত্যা পরিকল্পনার জন্য অর্থ সহায়তা মাদকের অনেক বড় চালান থেকে আদায় করা হয়েছিল। এই পুরা পরিকল্পনা সিআইএ’র পৃষ্ঠপোষকতায় তৈরি হয়েছিল এবং তাদেরই হস্তক্ষেপে এই জেনারেলের সাজা ইচ্ছা মত হালকা করা হয়েছিল।

আমেরিকার ‘দক্ষিণ বিমান পরিবহণ’ (South Air Transport) [যেটা প্রথমে সিআইএ’র মালিকানায় ছিল, অতঃপর পুনরায় পেন্টাগনের সাথে তাদের চুক্তি হয়েছে] পরিপূর্ণভাবে মাদক পাচারে জড়িত ছিলমাদক এখান থেকে সেখানে পৌঁছানো, এই বিমান কোম্পানির দায়িত্বে ছিল

দক্ষিণ আমেরিকা (South America) ৯০ এর দশকে:

১৯৯৬ ঈ. –তে মিয়ামির (Miami) ফেডারেল কোর্ট ‘ভেনিজুয়েলা’র (Venezuela) জেনারেল রেমন গাইলেন ডাভিলা’র (Ramon Guillen Davila) উপর ১৯৮৭ ঈ. থেকে ১৯৯১ এর মাঝামাঝি পর্যন্ত ২২ টন কোকেন আমেরিকায় পাচার করার অভিযোগ করেছে। যখন সে এই কাজটি করেছে তখন সে ভেনিজুয়েলার ‘ন্যাশনাল গার্ডস এন্টি ড্রাগ বুরো’র (National Guards Anti-drug Bureau) প্রধান ছিলো এবং তাকে ভেনিজুয়েলাতে সিআইএ’র সবচেয়ে বড় বিশ্বস্ত লোক হিসাবে উপাধি দেওয়া হয়েছিল।

অনুরূপভাবে ৯০ এর দশকে পেরু (Peru), কলম্বিয়া (Columbia) এবং মেক্সিকো’র (Mexico) সামরিক ও সরকারি কর্মকর্তাদের মাদক পাচারে জড়িত হওয়ার ক্ষেত্রে, আমেরিকা একেবারে চোখ এড়িয়ে চলেছে। যার সবচেয়ে বড় কারণ ছিল, বামপন্থিদের বিরুদ্ধে সেই প্রচারণা যেটা আমেরিকা এশিয়দের সহায়তায় তাদের দেশসমূহে চালাচ্ছিল।

হাইতি (Haiti), ১৯৮৬ ঈ. থেকে ১৯৯৪ পর্যন্ত:

সিআইএ হাইতির ডানপন্থী সেনাবাহিনী ও রাজনৈতিক নেতাদের ক্ষমতা প্রতিষ্ঠিত রাখার জন্য তাদের মাদক কারবারকে পরিপূর্ণই চোখ এড়িয়ে চলেছে। হাইতির সামরিক সরকারের একজন গুরুত্বপূর্ণ খুঁটি, জোসেফ মিচেল ফ্রেনকোইস (Joseph Michel Francois) [যে নিজে একজন বড় মাদক ব্যবসায়ী ছিল] আমেরিকান ‘ডিইএ’ এর পক্ষ থেকে নির্দেশনা পেতো যে, সে যেন সন্দেহভাজন মাদক পাচার সম্পর্কিত গোপন তথ্য সংগ্রহ করে। এই ব্যক্তি সিআইএ’র ইশারায় সেখানে কোকেনের ব্যবসা ও পাচারে জড়িত ছিল

. আমেরিকার বদমাশি; গণতন্ত্র ও পুঁজিবাদের আড়ালে স্নায়ুযুদ্ধ শেষ হওয়ার পর থেকে আমেরিকান বিশিষ্ট অর্থনীতি বিশেষজ্ঞরা ও ফিনান্সাররা, পশ্চিম ইউরোপ ও সোভিয়েত ইউনিয়নের অবশিষ্ট অংশ এবং মুসলিম দেশগুলোকে ‘গণতন্ত্র’ ও ‘মুক্ত অর্থনৈতিক বাজার’ প্রতিষ্ঠা করার পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছিল। আমেরিকা সরকারের অর্থ সহায়তায় চলা ‘এনইডি’ (National Endowment for Democracy) অর্থাৎ জাতিয় গণতন্ত্র শক্তি, বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় এই কাজেই ব্যস্ত ছিলএই প্রতিষ্ঠানটির নাম আর তার সমস্ত কাজকর্ম পুরাই উল্টো। এই প্রতিষ্ঠানটি গঠনের আসল লক্ষ্য ছিল, সিআইএ কয়েক দশক যাবত গোপনে যে সব অপারেশন করে আসছিল, সেগুলো এখন এই প্রতিষ্ঠানের নামে জন সম্মুখে খোলামেলা করবে। এজন্য এই প্রতিষ্ঠানটি সারা বিশ্বের বিভিন্ন সরকারের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যভাবে বিরোধীদেরকে দাঁড় করিয়েছে। পয়সার বিনিময়ে লোকদেরকে কিনেছে আর নিজের খুশি মত সরকার বানিয়েছে।

এ্যালিন ওয়িন্সটাইন (Allen Weinstein) [যিনি এই প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠাকালে এর সংবিধান প্রণেতাগণের মধ্যে ছিলেন] ১৯৯১ ঈ.-তে খুব স্পষ্টভাবে বলেন, ‘আজকে আমরা এই প্রতিষ্ঠানের আন্ডারে যা কিছুই করছি, সিআইএ কমবেশ ২৫ বছর যাবত এগুলোই একটু গোপনীয়ভাবে করে আসছে। বাস্তবতা হলো, এই প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে সিআইএ নিজেদের কালো অধ্যায়কে সাদা করছে’

এই প্রতিষ্ঠানটি ১৯৮৪ ঈ. সনে পানামা, ১৯৯০ ঈ. সনে নিকারাগুআ (Nicaragua) এবং ১৯৯৬ ঈ. সনে মঙ্গোলিয়া’র (Mangolia) নির্বাচনে কারসাজি করে নিজেদের খুশি মত ফলাফল অর্জন করেছে। ১৯৯০ ঈ. সনে বুলগেরিয়া (Bulgaria) এবং ১৯৯১ সনে আলবেনিয়ার (Albania) নির্বাচিত গণতান্ত্রিক সরকারের ক্ষমতার গদি উল্টানোর ক্ষেত্রে তারা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। অনুরূপভাবে হাইতিতে নির্বাচিত সরকারের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়া ডানপন্থীদের রক্ষক হিসাবে তারাই কাজ করেছিল। আমেরিকার দ্বারা প্রভাবিত বিশ্ব ব্যাংক (World Bank) এবং আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক ফান্ড (IMF) স্পষ্ট করে বলে দিয়েছে যে, তারা এমন কোন দেশকে অর্থনৈতিক সহায়তা করবে না, যারা মুক্ত বাজার অর্থব্যবস্থাকে (Free Market Economy) সাপোর্ট করে না।

১৯৯৪ ঈ. সনে আমেরিকা ‘হাইতি’র বিরোধিতা ছেড়ে দিয়ে তাদেরকে নিজেদের মিত্রদের অন্তর্ভুক্ত করে নিয়েছে এজন্য যে, হাইতির প্রেসিডেন্ট জেন বার্টরেন্ড এরিস্টাইড (Jean-Bertrand Aristide) আমেরিকাকে নিশ্চয়তা দিয়েছে যে, সে সমাজতন্ত্রের পথ ছেড়ে দিয়ে মুক্ত বাজার অর্থব্যবস্থায় অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবে।

পরিশিষ্ট

এটা কিভাবে সম্ভব যে, আমেরিকা সারা দুনিয়ার অর্থব্যবস্থা ও সমাজব্যবস্থাকে করায়ত্ত করে রাখবে? গণতন্ত্রীদেরকে উল্টো দিকে করে রাখবে? স্বাধীন সরকারদের গদি উল্টে দিবে? তাদের উপর পাশবিক ক্ষমতা খাটাবে? তাদের উপর রাসায়নিক ও মরণাস্ত্র হামলা করবে? তাদেরকে তেজস্ক্রিয়তা পরীক্ষার নিশানা বানাবে? এবং এই সবকিছু সত্তেও সে মিডিয়ার চোখে চোখ রাখার হিম্মত করবে? এই সবকিছু সত্বেও সে সারা বিশ্বে কঠোর নিন্দার সম্মুখীন হবে না? সামাজিক অনুভূতি সম্পন্ন ব্যক্তিরা তার নিন্দা করবে না? এবং আমেরিকার নীতিনির্ধারকরা কখনোই মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে আন্তর্জাতিক ট্রাইবুনালের মুখোমুখি হবে না?

আসলে এই ষড়যন্ত্র ও নীরবতা রহস্যজনক কোন বিষয় নয়। এগুলো শুধু কিছু ব্যক্তিকে কিনে নেওয়ার বিষয়। যারা কখনো জঙ্গি বিমানের ভয়ে বা অর্থনৈতিক কোন *স্বার্থে [যেমন: গমের ব্যবসা, ঋণ মাফ করা, ওয়ার্ল্ড ব্যাংক ও আই.এম.এফের ধমকি, ঘুষ, জোর জবরদস্তি, লাঞ্ছনা ইত্যাদির সামনে] দুর্বল হয়ে যায় এবং নত হয়ে যায়। আবার কখনো এই বদমাশের পক্ষ থেকে এসব দেশকে জাতীয়তাবাদের এবং ক্ষমতা অর্জনের উৎসাহ দিয়ে অথবা তাদেরকে ‘ন্যাটো’ (NATO), ‘ওয়ার্ল্ড ট্রেড অর্গানাইজেশন’ (WTO) ও ‘ইউরোপীয় ইউনিয়ন’ (EU) এর সদস্যপদের লোভ দেখিয়ে, কিনে নেওয়া হয়।

অবশ্যই অবশ্যই সামনের সময়গুলোতে এমন হবে যে, শাইখ উসামা বিন লাদেনের মত কোন নির্ভীক ব্যক্তি দাঁড়িয়ে যাবেন, তিনি বিশ্বের সর্বোচ্চ ‘অ’সম্মানিত ‘আন্তর্জাতিক হাই সোসাইটি’র বৃত্তে অন্তর্ভুক্ত হওয়াকে অস্বীকার করবেন এবং আমেরিকার চোখে চোখ রেখে তাকে শাসাবেন আর বলবেন

হে জালেম! দুনিয়াতে বাদশাহি ও রাজত্ব করার বিন্দুমাত্র অধিকার তোর নেই”!!!

আর তখন এটাই হবে সর্ব সঠিক কর্মপন্থা।

*************

৩ comments

  1. অচিরেই আমিরীকার মত মালাউনদের পতন ডেকে আনব ইনশাআল্লাহ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

যদি জিহাদ মাঠে মাগো মৃত্যুও হয় (Heart Touching) ┇ Ahmad Faiyaaz ┇ Ummah Studio

Ummah Studio পরিবেশিত   যদি জিহাদ মাঠে মাগো মৃত্যুও হয় by Ahmad Faiyaaz   ডাউনলোড ...