Templates by BIGtheme NET
BREAKING NEWS
Home / নির্বাচিত / ছাত্রলীগের সভাপতি কর্তৃক এক মসজিদের ইমামকে গাছের সাথে বেঁধে মাথা ন্যাড়া করে নির্যাতন

ছাত্রলীগের সভাপতি কর্তৃক এক মসজিদের ইমামকে গাছের সাথে বেঁধে মাথা ন্যাড়া করে নির্যাতন

ছাত্রলীগের সন্ত্রাসী ক্যাডারদের হাতে এদেশের আপামর মুসলিম জনতা ও উলামায়ে কেরাম নির্যাতিত হওয়ার ঘটনা আজকে নতুন কিছু নয়। এসকল অপরাধের পরও তারা যেন সরকারের চোখে নিরপরাধ।ফলে দিন দিন তাদের অত্যাচারের নিত্য নতুন পদ্ধতি যোগ হয়ে চলেছে। এরই ধারাবাহিকতায় পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে মোঃ আব্দুল গফ্ফার (৩০) নামে এক মসজিদের ইমামকে গাছের সাথে বেঁধে পিটিয়ে মানুষের মল মুখে ঢেলে ও মাথা ন্যাড়া করে নির্যাতন চালিয়েছে উপজেলার মির্জাগঞ্জ ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মোঃ রাসেল (২৮) ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা! গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় উপজেলার মির্জাগঞ্জ ইউনিয়নের দক্ষিণ মির্জাগঞ্জ গ্রামে ঘটনাটি ঘটে। আব্দুল গফ্ফার উপজেলার কাকড়াবুনিয়ার সোনাপুরা গ্রামের লতিফ হাওলাদারের ছেলে, তিনি পার্শ্ববর্তী বেতাগী উপজেলার মিয়ার হাট গ্রামের একটি জামে মসজিদের ইমাম ও খতিবের দায়িত্ব পালন করতেন। তাকে জোরপূর্বক মোটরসাইকেলে তুলে নির্জন এলাকায় নিয়ে একটি গাছের সাথে বেঁধে রাসেল, আনসার, জলিল ও তাদের দলবল অমানবিক নির্যাতন চালায় পরে টয়লেট থেকে মানুষের মল নিয়ে ইমাম সাহেবের মুখে ঢেলে দেয় এবং মাথা ন্যাড়া করে দেয়। লা হাওলা ওলা কুওয়্যাতা ইল্লা বিল্লাহ..এই হল বাংলাদেশের শাসনচিত্র। এমনিভাবে, বিভিন্ন সময়ে মসজিদের ইমাম সাহেবরা কুরআন, সুন্নাহের সঠিক আলোচনা করায় ছাত্রলীগের সন্ত্রাসী ক্যাডারদের হাতে নির্যাতিত হওয়ার ঘটনা অহরহ ঘটে চলছে। কতজনকে আবার চিরতরে গুম করে ফেলছে। তবু অনেকের দাবী এদেশ দারুল ইসলাম, ইসলাম ও মুসলমানেরা খুব শান্তিতে আছে। কবে যে আমাদের এই শান্তির ঘুম ভাঙ্গবে আল্লাহ তায়ালাই ভাল জানে!!হয়তো নিজের উপর আসার আগে ভাঙ্গবে না!!!!

About abu sulaiman

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*